সিলেটে এমদাদের শোডাউনে মেয়র আনোয়ারুজ্জামানের কঠিন হুশিয়ারি!

প্রকাশিত:রবিবার, ১৯ মে ২০২৪ ০৮:০৫

সিলেটে এমদাদের শোডাউনে মেয়র আনোয়ারুজ্জামানের কঠিন হুশিয়ারি!

সিলেটে এমদাদ রহমানও চলে গেলেন মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর বলয়ে। তিনি জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। রাজনীতির শুরু থেকেই ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও  জেলা পরিষদ  চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন খানের নিয়ন্ত্রিত তেলীহাওর গ্রুপের সিনিয়র নেতা।

এর আগে একই গ্রুপ  ছেড়ে মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর বলয়ে যোগ দিয়েছিলেন জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজও। দিনে দিনে বলয় বাড়াচ্ছেন মেয়র আনোয়ার। আর এ ‘আঘাত’ গিয়ে পড়ছে তেলীহাওর গ্রুপে।

 

এতে বিরক্ত ও ক্ষুব্ধ জেলার প্রভাবশালী নেতা নাসির উদ্দিন খান। তার দীর্ঘদিনের পুঞ্জীভূত ক্ষোভ গত সপ্তাহে সিলেটে আওয়ামী লীগের একটি অনুষ্ঠানে নাম না বললেও মেয়র আনোয়ারকেই টার্গেট করে বক্তব্য রেখেছিলেন তিনি। বলেছিলেন- ‘লন্ডন থেকে অনেকেই উড়ে এসে জুড়ে বসেছেন। অথচ দলের দুর্দিনে সিলেটের নেতারা জেল খেটেছেন, রাজপথে আন্দোলন করেছেন।’ তার এই বক্তব্য নিয়ে সিলেট জুড়ে যখন তোলপাড় চলছে তখনই পাল্টা জবাব দিলেন মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

আর এই জবাব দেয়া হলো গতকালের এমদাদ রহমানের দেয়া শোডাউনের মধ্যদিয়ে। এতে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের হাজারো নেতাকর্মীর উপস্থিতি ছিল।

 

শোডাউনের আগে রেজিস্ট্রারি মাঠের সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী। এই বক্তব্যেও মেয়র কারও নাম উল্লেখ করেননি। তবে ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন- ‘আমরা সবাই শেখ হাসিনার কর্মী। আমরা আদর্শে বিশ্বাস করি। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ দলের কর্মীরা কাজ করেছেন। কোনো কথায় আপনারা কান দেবেন না। আপনারা যারা আমার সঙ্গে আছেন আমি তাদেরকে সঙ্গে নিয়েই কাজ করবো।’ মেয়র আনোয়ার প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ নেতাদের উদ্দেশ্য করে বলেন- ‘সবাই ঠাণ্ডা মাথায় মানুষের কল্যাণে কাজ করবেন। কেউ চোখ রাঙালে  কোনো কিছু আসে যায় না। আমরা বলতে চাই না। সবার দৌড় জানি। দৌড় যেহেতু জানি এগুলো নিয়ে কথা না বলাই ভালো। মানুষের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করবেন। নিজেকে নবাব মনে করবেন না।’ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও নবনির্বাচিত সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সুজাত আলী রফিক বলেন- বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার  নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা আজ ঐক্যবদ্ধ দেখিয়ে দিয়েছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এমদাদ রহমান। তার বলিষ্ঠ  নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের  সৈনিকরা দেশ গড়ার কাজে মনোনিবেশ করবেন।

এখন বসে থাকার সময় নেই, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরও শক্তিশালী করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে। এদিকে- সমাবেশ শেষে বেলা ২টার দিকে নগরীর ঐতিহাসিক রেজিস্ট্রারি মাঠ থেকে  শোভাযাত্রাটি বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে  চৌহাট্টা পয়েন্টে গিয়ে সমবেত হয়। এ সময় জেলা  স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এমদাদ রহমান বলেন- আওয়ামী লীগের ‘ম্যাজিকম্যান’ মেয়র আনোয়ারুজ্জামানের নেতৃত্বে সিলেটের নেতাকর্মীরা আজ ঐক্যবদ্ধ। কেননা, অনেকে কর্মীদের জিম্মি করে নির্যাতন করে নিজেদের রাজা ভাবেন।  সে সব নেতাদের দিন ফুরিয়ে আসছে। এ সময় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আখতারুজ্জামান চৌধুরী জগলু, গোলাপগঞ্জ  পৌরসভার মেয়র আমিনুল ইসলাম রাবেল, সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজ।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মো. খলিলুর রহমান খলিল, সিলেট জেলা তাঁতী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুজন দেবনাথ,  জেলা কৃষক লীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ- সভাপতি সালাহ উদ্দিন পারভেজ, গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রুমেল সিরাজ, জেলা যুবলীগ  নেতা তানভীর আহমদ,  জেলা ছাত্রলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক নীলয় কিশোর ধর জয়, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীন আহমদ চৌধুরী নয়ন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য ফজলে রাব্বি, শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি তরিকুল ইসলাম তারেক, আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন শিপলু, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক উপ- কমিটির সদস্য সাব্বির আহমদ বকশী। এ ছাড়া  কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামসুল ইসলাম, কানাইঘাট উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মারুফ আহমদ ছাড়াও অঙ্গসংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী শোভাযাত্রায় উপস্থিত ছিলেন।