আবার অবরোধ শুরু: মাঠ গরম করার চেষ্টা করবে বিএনপি

প্রকাশিত:বুধবার, ০৬ ডিসে ২০২৩ ১১:১২

আবার অবরোধ শুরু: মাঠ গরম করার চেষ্টা করবে বিএনপি

সরকারের পতন এবং নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে এক দফার আন্দোলন করছে বিএনপি। দাবি আদায়ে সরকারকে বাধ্য করতে একের পর এক অবরোধ-হরতাল দিয়ে যাচ্ছে দলটি। কিন্তু এসব কর্মসূচিতে দলের নেতা-কর্মীদের সক্রিয় অংশগ্রহণ নেই। যে কারণে ভোটের তফসিল ঘোষণার পরও আন্দোলনের মাঠ তেমন গরম হয়নি মনে করছেন দলেরই অনেকে। এই অবস্থায় নেতা-কর্মীদের মাঠে নামাতে নড়েচড়ে বসেছে দলের হাইকমান্ড। শিগগির মাঠে এর প্রতিফলন দেখা যাবে বলে জানিয়েছেন বিএনপির প্রবীণ নেতারা।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বলেন, ‘বিএনপি আন্দোলনেই আছে। আন্দোলন কীভাবে করতে হয়, এরই মধ্যে বিএনপির তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা সেটা দেখিয়ে দিয়েছেন। অপেক্ষা করেন। সময় হলেই দেখতে পাবেন।’

এর মধ্যে দশমবার দেশব্যাপী অবরোধ শুরু হচ্ছে আজ বুধবার ভোর ৬টা থেকে। শুক্রবার ভোর ৬টা পর্যন্ত ৪৮ ঘণ্টা সারা দেশে সর্বাত্মক রাজপথ, রেলপথ ও নৌপথ অবরোধ কর্মসূচি পালনের কথা বলছে দলগুলো। অন্যদিকে, অবরোধকে কেন্দ্র করে সহিংসতার বিরুদ্ধে পুলিশ ও র‍্যাবের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এবারের অবরোধের পর আগামী সপ্তাহ থেকে ভোট প্রতিহত করতে মাঠে নামতে চায় বিএনপি। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এ বিষয়ে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে কথা বলছেন। ২৮ অক্টোবরের পর গ্রেপ্তার অভিযান শুরুর মধ্যেও এই কথাবার্তা অব্যাহত রেখেছেন তিনি। বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে আগামী দিনের আন্দোলন প্রসঙ্গে আলাপ করছেন তিনি। ব্যক্তিগত আলাপের বাইরে দলগতভাবেও আলাপ-আলোচনা করছেন।

এর অংশ হিসেবে সম্প্রতি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তর বিএনপির সঙ্গে ভার্চুয়ালি বৈঠক করেন তারেক রহমান। সেখানে প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবিলা করে সীমিত আকারে হলেও মাঠে থাকার জন্য তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের ধন্যবাদ জানান তিনি। যদিও ঢাকা মহানগর বিএনপির ভূমিকায় অতটা সন্তুষ্ট হতে পারেননি তিনি।

অন্যদিকে কারাগারের বাইরে থাকা দলের অনেক জ্যেষ্ঠ নেতার ভূমিকায় হতাশা প্রকাশ করেন তারেক রহমান। বিশেষ করে যাঁদের বিরুদ্ধে মামলা-মোকদ্দমা নেই, তাঁরা রাজপথে না নামায় তাঁদের সমালোচনা করেন তিনি। তবে প্রলোভন ও চাপ মোকাবিলা করে নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্তে অটল থাকার জন্য দলের নেতাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

আত্মগোপনে থাকার পর ধীরে ধীরে রাজপথে নামছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাসহ মধ্যম সারির নেতারাও। এরই মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও সেলিমা রহমানকে প্রকাশ্যে দেখা গেছে। তাঁরা সমাবেশে বক্তব্য দিয়েছেন। স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য আব্দুল মঈন খান প্রকাশ্যে না এলেও গণমাধ্যমে বিভিন্ন বক্তৃতা-বিবৃতি দিয়ে চলেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বলেন, আসলে ওই পরিস্থিতিতে পূর্ণ শক্তি নিয়ে মাঠে নামার অবস্থা বিএনপির ছিল না। মাঠে নামলে গ্রেপ্তারের ভয় আর জেলে গেলে নির্বাচনের চাপ। সব দিক চিন্তা করেই কাজ করতে হয়েছে। যে কারণে মাঠে নেতা-কর্মীরা সক্রিয় হতে পারেননি। তবে এখন নেতা-কর্মীরা আবার মাঠে সক্রিয় হবেন। তারেক রহমান এ ব্যাপারে সবার সঙ্গে আলাপ করছেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ