কানাডাগামী সিলেটের ৪৫ যাত্রীকে অফলোড: বিমানের চেয়ারম্যানকে নোটিশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার, ১৪ নভে ২০২৩ ১১:১১

কানাডাগামী সিলেটের ৪৫ যাত্রীকে অফলোড: বিমানের চেয়ারম্যানকে নোটিশ

কানাডাগামী ৪৫ যাত্রীকে বিমান থেকে অফলোডের ঘটনায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল উদ্দিনকে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন এক আইনজীবি। নোটিশে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর বিরোদ্ধে কর্তব্য অবহেলা ও অন্যায়ভাবে, বেআইনী ও বিনা অধিকারে যাত্রী হয়রানীর অভিযোগ আনা হয়। এবং সংশ্লিষ্ঠ ভূক্তভোগীদের পক্ষে মানহানি ও ক্ষতিপূরন দাবি করে, নোটিশ প্রাপ্তির সাত দিনের মধ্যে কারনদর্শানোর জন্য বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) সুপ্রীমকোর্টের আইনজীবি কাজী মোশাররফ রাশেদ এ লিগ্যাল নোটিশ দেন।

নোটিশে বলা হয়, বিগত ১৩ইং নভেম্বর ২০২৩ ইং তারিখের সিলেটের একটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত, “ভূয়া ডকুমেন্টে কানাডার ভিসা, ঢাকা বিমানবন্দর থেকে সিলেটের ৪২ যাত্রী ফেরত” শীর্ষক সংবাদে আদিষ্ট হয়ে এই মর্মে আপনার সদয় অবগতির জন্য জানাইতেছি যে,

১। সম্প্রতি (৬ নভেম্বর ২০২৩) ঢাকা বিমানবন্দর থেকে কানাডার উদ্দেশ্যে আগত ৪২ জন যাত্রীকে আটক করে তাদেরকে বাড়িতে ফেরত পাঠিয়েছে, শাহজালার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের ঐদিনের কর্তব্যরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। অথচ এরা প্রত্যেকে কানাডার বৈধ ভিসা নিয়ে সিলেট ওসমানী বিমান বন্দরে তাদের ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ঢাকা এসে ট্র্যানজিট লাউঞ্জে টরন্টোগামী বিমানের কানেকটিং ফ্লাইটের অপেক্ষায় ছিলেন।

২। বিমানের কর্মকর্তারা অভিযোগ করেছেন যে আমন্ত্রণপত্রের মাধ্যমে তারা ভিসা পেয়েছেন সেটা ছিল ভুয়া। বিমানের লোকেরা বলছে বিয়ের আমন্ত্রণ পত্রটি ছিল ভূয়া। তারা আরও বলেন, যাদের ভিসা হয়েছে তাদের বেশিরভাগই এর আগে দেশের বাইরে কোথাও বেড়াতে যাননি। এটাই তাদের প্রথম সফর।

৩। উল্ল্যেখ্য যে, কানাডা হাই কমিশন কর্তৃক ইতিপূর্বে উক্ত ৪২ জন যাত্রীর সংশ্লিষ্ট ভিসা আবেদনের সাথে সংশ্লিষ্ট আমন্ত্রণপত্রটি বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে করে ইতিমধ্যে প্রত্যেককে বৈধ ভিসা ইস্যু করেছে।

৪। এমতাবস্থায় আপনার সদয় অবগতির জন্য জানাইতেছি যে, কানাডা হাই কমিশন কর্তৃক ইতিপূর্বে উক্ত ৪২ জন যাত্রীর সংশ্লিষ্ট ভিসা আবেদনের সাথে সংশ্লিষ্ট আমন্ত্রণপত্রটি বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে করে ইতিমধ্যে প্রত্যেককে বৈধ ভিসা ইস্যু করার পরে, প্রথ্যেক যাত্রী কানাডা যাওয়ার নিমিত্তে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর নির্ধারিত তারিখের নির্ধারিত মুল্যের বিমান টিকেট ক্রয় করে সিলেট ওসমানী বিমান বন্দরে তাদের ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ঢাকা এসে ট্র্যানজিট লাউঞ্জে টরন্টোগামী বিমানের কানেকটিং ফ্লাইটের অপেক্ষায় থাকাকালীন অবস্থায় হযরত শাহজালার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের ঐদিনের কর্তব্যরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সম্পূর্ণ অন্যায় ও বেআইনী ভাবে ও কোন আইনগত অধিকার ছাড়াই সংশ্লিষ্ট ৪২ জন যাত্রীর কানাডা ভিসার সংশ্লিষ্ট আমন্ত্রণপত্র সঠিক কি না তাহা, যাচাই-বাছাই করতে চাওয়ার মাধ্যমে তাহা ভূয়া উল্ল্যেখে তাদের বৈধ ভিসা থাকা অবস্থায় সংশ্লিষ্ট যাত্রীদেরকে কানাডা যাওয়ার বাধাগ্রস্থ করে তাদেরকে ফেরত পাঠানোর কারনে, কেন ঐদিনে অর্থাৎ বিগত ০৬ই নভেম্বর, ২০২৩ ইং তারিখে হযরত শাহজালার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের কর্তব্যরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে তথা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এর বিরোদ্ধে কর্তব্য অবহেলা ও অন্যায়ভাবে, বেআইনী ও বিনা অধিকারে যাত্রী হয়রানীর অভিযোগে, সংশ্লিষ্ঠ ভূক্ত ভোগীদের পক্ষে তাহাদের মানহানি ও ক্ষতিপূরন দাবি করে, আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হইবে না, তাহা আপনি অত্র নোটিশ প্রাপ্তির ০৭ (সাত) দিনের মধ্যে কারনদর্শানোর জন্য বিনীতভাবে অনুরোধ জানাইতেছি।

অন্যথায় উপরোক্ত মোতাবেক উক্ত সংশ্লিষ্ট ৪২ জন যাত্রীর ব্যাক্তিগত হয়রানী ও মানহানি এবং অপূরনীয় আর্থিক ক্ষতির পরিপ্রেক্ষিতে আপনার/আপনাদের বিরুদ্ধে দেওয়ানী ও ফৌজদারী আদালতে এমনকি উচ্চ আদালতে বাংলাদেশ সংবিধান এর আর্টিকেল ১০২ মোতাবেক মোকদ্দমা দায়ের করিতে বাধ্য হইব এবং এক্ষেত্রে এ সংক্রান্ত যাবতীয় দায়-দায়িত্ব আপনার উপর বর্তাইবে এবং আপনি যাবতীয় ক্ষতি পূরণ পরিশোধ করিতে বাধ্য থাকিবেন।

অত্র লিগ্যাল নোটিশ আমার কর্তৃক স্বাক্ষরিত। উক্ত সংশ্লিষ্ট ৪২ জন যাত্রীর পক্ষে তথা জনস্বার্থে, জালালাবাদ প্রবাসী কল্যান পরিষদ, সিলেট, বাংলাদেশ এর উদ্যোগে অত্র লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করা হইল এবং এর কপি ও অন্যান্য দলিলাতসমূহ, পরবর্তী মামলা মোকদ্দমার প্রয়োজনে আমার সেরেস্থায় সংরক্ষিত থাকিল।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ