মৌলভীবাজারে নার্সের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

প্রকাশিত:সোমবার, ১৩ নভে ২০২৩ ০৫:১১

মৌলভীবাজারে নার্সের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ
নিজস্ব প্রতিবেদক:-  মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালে নার্সের অবহেলায় এক নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে।
সোমবার (১৩ নভেম্বর) ভোরে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে আমিনা আক্তার (২৬) নামের এক মহিলার নবজাতকের মৃত্যু ঘটে।
মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার গবিন্দবাটি এলাকার মৃত নবজাতকের পিতা সেলিম মিয়ার অভিযোগ তার স্ত্রী আমিনা আক্তারকে ১২ নভেম্বর ডেলিভারী সংক্রান্ত কারণে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মধ্যরাতে তার প্রসব ব্যাথা শুরু হলে তারা কর্তব্যরত সিনিয়র নার্স নার্গিস আক্তারকে ডাকতে গিয়ে তাকে ঘুমন্ত পান।এসময় অন্যান্য নার্সরা মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। সিনিয়র নার্স নার্গিস আক্তার তাদেরকে সময় বাকী আছে বলে বিদায় করে দেন। প্রসবকালীন জটিলতা দেখা দিলে আবারও সাথে থাকা রত্না বেগম সিনিয়র নার্স নার্গিস আক্তারকে গিয়ে আসার জন্য অনুরোধ করেন। তিনি তখন রোগীকে হাঁটানোর পরামর্শ দেন। কিছু সময়ের মধ্যে আমিনা আক্তার মৃত সন্তান প্রসব করেন।
এদিকে নবজাতক মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে মৃতের আত্মীয় স্বজনরা উত্তেজিত হয়ে উঠলে কর্তৃপক্ষ পুলিশকে খবর দেন। এসময় পুলিশ পাহারায় নার্স নার্গিস আক্তারকে নিরাপদে বাসায় পাঠানো হয়।
প্রসুতি বিভাগের ৪২ নং বেডের জেরিন আক্তার, ৪৩ নং বেডের শিউলি আক্তার, ৪৪ নং বেডের রুপালী বেগম, ৪৬ নং বেডের রোহিনা বেগম বলেন, প্রসব ব্যাথায় আমিনা আক্তারকে ছটপট করতে দেখেছি। নার্স বা ডাক্তার কেহ কাছে আসেনি। পরবর্তীতে আমিনা বেগম কোন নার্স বা ডাক্তার ছাড়াই মৃত সন্তান প্রসব করেন। তারা সকলেই প্রসুতি এক দু’ দিন বা কিছু সময় পূর্বে ডেলিভারী হয়েছে। তারা প্রত্যেকে নার্স বা ডাক্তার সংকটে ভুগছিলেন।
এব্যাপারে মৌলীভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক কর্মকর্তা বিনেন্দ্র ভৌমিক বলেন, ডেলিভারীর পূর্বে বাচ্চার অবস্থা স্বাভাবিক ছিল। ডেলিভারীর সময় নবজাতকের শ্বাস কষ্ট বেড়ে যায়। আর বাচ্চাকে তো টেনে হেঁছড়ে বের করা যায়না। ডেলিভারী সময় অনেক ক্ষেত্রে মা ও নবজাতক দু’জনই মারা যায়। এক্ষেত্র মা’তো বেঁচে আছে। বিষয়টি আর এম ও ফয়ছল আহমেদসহ বসে পক্ষের সাথে সমাধান হয়ে গেছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ