দিরাইয়ের শালিসি ব্যক্তিত্ব শিক্ষানুরাগী আকিকুন্নুর’র ১ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত:শনিবার, ০৫ ফেব্রু ২০২২ ১০:০২

দিরাইয়ের শালিসি ব্যক্তিত্ব শিক্ষানুরাগী আকিকুন্নুর’র ১ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার আদর্শ গ্রাম জগদলের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণকারী মোঃ আকিকুন্নুর পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেছিলেন আজকের এই দিনে।

নিজ কর্মগুণে ও পারিবারিক শিক্ষায় উঠেছিলেন সাফল্যের শিখরে।ক্ষণজন্মা এই মানুষটির জন্ম ১৯৫৫ সালের ১৪ জানুয়ারী। বাবা মোঃ আব্দুল মন্নান। বড় চাচা আব্দুল হক ছিলেন জগদল ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাকালীন চেয়ারম্যান। বড় ভাই ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় শিল্পী শফিকুন্নুর।

তার ৬ ছেলে ও এক মেয়ে,দুই ছেলে উজ্জ্বল আহমেদ ও ফরহাদ আহমেদ প্রয়াত।চার ছেলের মধ্যে বড় ছেলে যুক্তরাজ্যস্থ দিরাই থানা ডেভেলপমেন্ট এর সাধারণ সম্পাদক এর দায়িত্বরত মনিরুজ্জামান রয়েল,আরেক ছেলে বাংলাদেশে থাকাকালীন জগদল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারণ সম্পাদক ফয়সল হাসান লন্ডনে বসবাসরত। ক্রিকেট প্রেমী আফজাল হোসেনও বর্তমানে লন্ডনে অবস্থানরত।ছোট ছেলে ইমরুল হাসান সজল এম.সি কলেজ থেকে লেখাপড়া শেষ করে আমেরিকা স্থায়ী ভাবে বসবাসের জন্য চলে যাবে কিছুদিন পর।

এত অর্থ-বিত্ত, প্রভাব-প্রতিপত্তি সবই ছিল তার। তারপরও ক্ষমতার কাছে থেকেও তিনি ছিলেন ব্যতিক্রম। অর্থ বা ক্ষমতার মোহ তাকে কোনদিনই টানেনি। জীবনের ৬৬ টি বসন্তই ব্যয় করেছেন অসহায় মানুষের সেবায়।

শিক্ষা জীবন শুরু করেন ১৯৬০ সালে জগদল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। প্রাথমিকের গণ্ডি পেরিয়ে ভর্তি হন জগদল আল-ফারুক উচ্চ বিদ্যালয়ে।১৯৬৯ সালে মেট্রিক পাশ করে ভর্তি হন গোবিন্দগঞ্জ আব্দুল হক কলেজে। কৃতিত্বের সঙ্গেই ১৯৭২ সালে ঐ প্রতিষ্ঠানে ইন্টারমিডিয়েট শেষ করে ১৯৭৪ সালে বি.এ সম্পন্ন করেন সুনামগঞ্জ কলেজ থেকে।

লেখাপড়া শেষ করে প্রথমদিকে চাকুরী নিয়েছিলেন অগ্রণী ব্যাংকে। পারিবারিক কারনে চাকুরী ছেড়ে চলে যান বাড়িতে, ছিলেন আজন্ম আওয়ামীপন্থী রাজনীতিবিদ এবং শালিস ব্যক্তিত্ব।
জগদল মহাবিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন তিনি।ছিলেন গভর্নিং বডির সদস্যও।

আজ ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২২ সেই গুণি ব্যক্তি মোঃ আকিকুন্নুর এর ১ম মৃত্যু বার্ষিকীতে উনার পরিবারের পক্ষ থেকে দোয়া কামনা করা হয়েছে।আল্লাহ যেন উনার বিদেহী আত্মাকে বেহেশতের সুশীতল ছায়ায় রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ