খাজাঞ্চী-লামাকাজীতে নৌকায় গণজোয়ার নিজেদের দূর্গে দ্বিধাবিভক্ত বিএনপিপন্থিরা

প্রকাশিত:রবিবার, ৩০ জানু ২০২২ ১০:০১

খাজাঞ্চী-লামাকাজীতে নৌকায় গণজোয়ার নিজেদের দূর্গে দ্বিধাবিভক্ত বিএনপিপন্থিরা

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি:-  ইতিমধ্যে শেষ হয়ে গেছে ৬ষ্ঠ ধাপে অনুষ্ঠিত সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকাজী ও খাজাঞ্চী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সকল প্রচার-প্রচারণা। রাত পোহালেই (৩১ জানুয়ারী) অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচন।

সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটাররা ইভিএমে নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে আগামী ৫ বছরের জন্য উন্নয়নের কান্ডারী নির্বাচিত করবেন।

সুষ্ঠ, সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচনী এলাকায় টহল শুরু করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং মাঠে রয়েছেন বিচারিক ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। দুই ইউনিয়নের ২৩টি ভোট কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে নির্বাচনী সরঞ্জাম। নির্বাচনী এলাকায় সব ধরনের যান চলাচলে কার্যকর করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা।

দুই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৯ জন (লামাকাজীতে ৪ ও খাজাঞ্চীতে ৫ জন) প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহন না করলেও দলীয় কোন্দলের কারণে বিএনপিপন্থি একাধিক নেতাকর্মী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করায় নিজেদের দূর্গে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছেন বিএনপি অনুসারী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

আর ভোটারদের চুলচেরা বিশ্লষণের পর দুই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত একক প্রার্থীদের নৌকা প্রতীকে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

এছাড়া দুই ইউনিয়নে নিজেদের দলীয় প্রার্থী না থাকায় মহাজোটের অন্যতম শরিক দল জাতীয় পার্টি স্বাধীনতার প্রতীক নৌকাকে দলীয় সমর্থন দেওয়ায় এবং নিজেদের দল নির্বাচনে না থাকায় এলাকার কাঙ্খিত উন্নয়নের আশায় স্থানীয় বিএনপির একটি বড় অংশ নিরবে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীদেরকে সমর্থন দেওয়ায় নির্বাচনের শেষ মুহুর্তে বিজয়ের পথে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আরশ আলী গণি (খাজাঞ্চী ইউনিয়ন) ও ফয়ছল আহমদ (লামাকাজী ইউনিয়ন)।

এবারের নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে বিএনপির মনোনীত কোন প্রার্থী না থাকার পরও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের পক্ষালম্বন করতে গিয়ে উপজেলা বিএনপিতে থাকা পুরানো গ্রæপ আবারও সক্রিয় হয়ে উঠেছে। উঠেছে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগও।

এরফলে বিএনপির ভোটারা তিনটি ভাগে বিভক্ত হওয়ার ফলেই নির্বাচনী মাঠে বিশাল সুবিধা আদায়ের পথে আওয়ামী লীগ। এতে দীর্ঘদিন ধরে বিএনপির দূর্গ হিসেবে পরিণত হওয়া লামাকাজী ও খাজাঞ্চী ইউনিয়নে এবার নিজের দলীয় প্রার্থীর বিজয় নিয়ে আশাবাদী আওয়ামী লীগ। আর ওই দুই ইউনিয়নে নৌকার বিজয় হলে নির্দিস্ট বরাদ্ধের পাশাপাশি এলাকার জন্য আরও বেশি বরাদ্ধ এনে দেওয়ায় প্রতিশ্রæতি করেছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। নৌকা প্রতীকের বিভিন্ন নির্বাচনী জনসভায় নেতারা এ প্রতিশ্রুতিগুলো দিয়েছেন।

লামাকাজী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত একক প্রার্থী বৃহত্তর সিলেট আওয়ামী পরিবার জেদ্দার সভাপতি আরশ আলীর (প্রতীক নৌকা) সাথে প্রতিদ্বন্দিতায় রয়েছেন স্বতন্ত্রের ব্যানারে খাজাঞ্চী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য তালুকদার গিয়াস উদ্দিন (প্রতীক আনারস), বিএনপির নেতা ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক কয়েছ মিয়া (প্রতিক ঘোড়া) এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের একক প্রার্থী আব্দুল বাছিত (প্রতীক হাতপাখা)।

লামাকাজী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত একক প্রার্থী লামাকাজী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ফয়ছল আহমদের (প্রতীক নৌকা) সাথে প্রতিদ্বন্দিতায় রয়েছেন স্বতন্ত্রের ব্যানারে ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কবির হোসেন ধলা মিয়া (প্রতীক চশমা), নব-গঠিত লামাকাজী ইউনিয়ন বিএনপির সহ সভাপতি গোলাম কিবরিয়া তালুকদার (প্রতীক আনারস), একই কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আবেদুর রহমান আছকির (প্রতীক ঘোড়া) এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের একক প্রার্থী আতাউর রহমান (প্রতীক হাতপাখা)।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে ৩১ জানুয়ারী ইভিএম পদ্ধতিতে ৬ষ্ঠ দাপে অনুষ্ঠিত উপজেলার লামাকাজী ইউনিয়নে ১০টি ভোট কেন্দ্রের ৫৮টি বুথে ইউনিয়নের ২১ হাজার ৯০৫ জন (পুরুষ ১১ হাজার ৫৫০ জন ও মহিলা ১০ হাজার ৩৫৫) ও খাজাঞ্চী ইউনিয়নে ১৩টি ভোট কেন্দ্রের ৬০টি বুথে ইউনিয়নের ২২ হাজার ৫১৭ জন (পুরুষ ১১ হাজার ৭০১ জন ও মহিলা ১০ হাজার ৮১৬) ভোটার নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে দুই ইউনিয়নে ২ জন চেয়ারম্যান, ১৮ জন সাধারণ সদস্য (মেম্বার) ও ৬ জন মহিলা সদস্য (মহিলা মেম্বার) নির্বাচিত করবেন।

এরমধ্যে লামাকাজী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন, সাধারণ সদস্য (মেম্বার) পদে ৫০ জন ও সংরক্ষিত সদস্য (মহিলা মেম্বার) পদে ১৪ জন এবং খাজাঞ্চী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, সদস্য (মেম্বার) পদে ৪৩ জন ও সংরক্ষিত সদস্য (মহিলা মেম্বার) পদে ১১জন প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।

বিশ্বনাথ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা গোলাম সারওয়ার বলেন, নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। কেন্দ্রগুলোতে নির্বাচনী সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোনায়েন করা হয়েছে। এছাড়া সুষ্ঠ, সুন্দর ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য মোতায়েন থাকবে র্যা ব, কোস্টগার্ড ও বিজিবি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ