শাবিপ্রবির আন্দোলন ও সিলেট আওয়ামী লীগের ভুল! -সুজাত মনসুর

প্রকাশিত:সোমবার, ২৪ জানু ২০২২ ০৮:০১

অবশেষে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগসহ দলের কতিপয় নেতা বিবৃতি দিয়ে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ-এর পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকগণ এক বিবৃতিতে এই আন্দোলনের পেছনে অশুভ ইঙ্গিতের কথা বলেছেন। এছাড়া যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রঞ্জিত সরকারও বিবৃতি দিয়েছেন। দেরিতে হলেও তারা যে এই আন্দোলনের পেছনে একটা রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র রয়েছে তা অনুধাবন করায় সাধুবাদ জানাই।

আমরা হাতেগোনা কয়েকজন কিন্তু শুরু থেকেই আকারে ইঙ্গিতে কখনো বা স্পষ্টভাবে বলে আসছি এ আন্দোলনের পেছনে একটা গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে। হঠাৎ করেই ভিসিকে অবরুদ্ধ করা ও অবরুদ্ধ অবস্থা থেকে মুক্ত করতে গিয়ে পুলিশের এ্যাকশনকে কেন্দ্র করে ভিসির পদত্যাগ-এর দাবি শিক্ষাঙ্গনকে অস্থিতিশীল করার পুরনো কৌশল। এ বিষয়টি শিক্ষামন্ত্রী ও ৫০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিরা বুঝতে পারলেও সিলেট আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব বুঝতে এতো দেরি হলো কেন বোধগম্য নয়। আর এই দেরিতে অনুধাবন করা, প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ না করা ও আন্দোলনরতদের সাথে মিষ্টিসুরে কথা বলা ছিল মারাত্মক ভুল। যদি তারা শুরুতেই কঠোর অবস্থান নিতেন তাহলে আজ পরিস্থিতির এমন অবনতি হতো না। ভিসির বাড়ির বিদ্যুৎ ও পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার মত অমানবিক ও বেআইনি কাজ করার দুঃসাহস দেখাতো না। একথা ভুলে গেলে চলবে না যে, যাদের উদ্দেশ্য হলো শিক্ষাঙ্গন অস্থিতিশীল করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার তাদের সাথে মিষ্টি সুরে কথা বলে কাজ হবে না। আঙুল একটু বাঁকা করলে হবে না, পুরোটা বাঁকা করুন দেখবেন সব ঠিক হয়ে গেছে। কথা নেই বার্তা নেই ভিসিকে পদত্যাগ করতে হবে, কেন? এটা কি মামা বাড়ির আবদার।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ