করোনা প্রসঙ্গ ; এক অন্য লড়াই!

প্রকাশিত:সোমবার, ০৫ জুলা ২০২১ ০৬:০৭

এ এক অন্য লড়াই। বাস্তবতা বড়ই নিষ্টুর। কঠিন সময়ে আমরা। করোনার দাপটে বিপর্যস্থ সব কিছু। মানুষ মৃত্যুর মিছিল চলছে। কে জানতো- এমন কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হবো আমরাই। চোখের সামনেই আইসিইউর অপেক্ষায় থাকা রোগীরা মারা যাবে। আতঙ্কেও মারা যাবে মানুষ। এমন কঠিন বাস্তবায়তায় আমাদের কী বা করা আছে। তবে- আছে অনেক কিছুই করার। এই মূহূর্তে মানবতা দেখানোর সবচেয়ে বড় সুযোগ। করোনার সঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণা করতে হবে।

এই যুদ্ধ প্রথমেই হবে ব্যক্তি কেন্দ্রিক। নিজেকে নিজে আগে করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করতে হবে। নিজেকে সুরক্ষার সব কৌশল অবলম্বন করতে হবে। এরপর পরিবারকে করতে হবে সুরক্ষা। পরে সমাজ ও রাস্ট্রকে সুরক্ষা করতে হবে। এমন সুরক্ষায় সহযোগি হতে হবে আপনাকেই। মানুষের মধ্যে আতঙ্ক কমাতে হবে। ভয় নয়, করোনাকে জয় করার জন্য সাহসী হতে হবে। ধৈর্য্য ধারন করে যুদ্ধের ময়দানে অদৃশ্য শত্রু করোনাকে পরাজিত করতে হবে।
খেয়াল রাখতে হবে- করোনায় আক্রান্ত হলে যাতে আপনার দ্বারা কেউ সংক্রমিত না হয়। তীব্র মনোবল নিয়ে আইসোলেশনে থেকে আপনাকেই করোনাকে জয় করতে হবে। সিলেটের করোনা পরিস্থিতি মোটেও ভালো নয়।

 

ভারতের করোনা ডেল্টার ধরন সিলেটকেও গ্রাস করেছে। এতোদিন সিলেট শহর ও আশপাশ এলাকায় কেন্দ্রিক করোনার সংক্রমন ছিলো বেশি। এখন সেটি গ্রামে গ্রামে চলে গেছে। গ্রামে তাণ্ডব শুরু হওয়ার আগে সবাইকে সতর্ক হতে হবে। সর্দি, ঝরে আক্রান্ত হলেই বিচ্ছিন্ন হয়ে থাকুন।
আইসিইউ সংকট চলছে। সুতরাং বিশেষ করে পরিবারের বয়স্ক ও অসুস্থ মানুষকে সাবধানে রাখুন। লকডাউন মেনে চলাটা খুব জরুরী। লকডাউনই পারে করোনার সংক্রমন ঠেকাতে। সরকার কর্তৃক ঘোষিত লকডাউনকে সফল করতে হবে। খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া বাসার বাইরে বের হওয়া থেকে বিরত থাকুন।

 

বাজার কিংবা নিজের এলাকায় বেশি লোকজনের সমাগম দেখলে প্রশাসনকে অবগত করুন। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আপনিও হয়ে উঠুন সহায়ক শক্তি। লকডাউনের কারনে অভুক্ত জনকে যতটুকু সম্ভব সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিন। আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় করোনাকে জয় করে নতুন এক বিশ্ব পাবো ইনশাল্লাহ। সেই দিন পর্যন্ত লড়াই অব্যাহত রাখতে হবে।

লেখক ;ওয়েছ খছরু ;সিলেট প্রতিনিধি একুশে টিভি ও মানবজমিন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ