কমলগঞ্জে চিকিৎসা অবহেলায় নারীর মৃত্যু, সঠিক বিচার চান ভুক্তভোগী পরিবার

প্রকাশিত:রবিবার, ০৪ জুলা ২০২১ ০৮:০৭

মোঃ তাজুদুর রহমান:-  মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার ও নার্সদের অবহেলায় নারীর মৃত্যুর ঘটনায় স্বাস্থ্যসেবার বেহাল দশা আবারও ফুটে উঠেছে।
গত ৩০ জুন পেট ব্যাথা নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চিকিৎসা নিতে ভর্তি হন ধর্মপুরের মন্নান মিয়ার মেয়ে সুমি বেগম কিন্তু পরদিন সকালে ব্যথা আরও বেড়ে গেলে  ডাক্তারকে ডাকতে বলেন সুমির মা। কিন্তু ডাক্তার না পেয়ে রেফারার্ডের কথা বললে তারা বলেন আপনার রোগী ভান ধরেছে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন কমে যাবে। পাঁচটার দিকে ডাক্তার আসবে তখন বলা যাবে কি অবস্থা। ডাক্তার না পেয়ে তারা দিশেহারা হয়ে খুঁজাখুজি করে একপর্যায়ে কাতরাতে কাতরাতে সুমি বেগম মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।
সুমি বেগমের স্বামী মৌলভীবাজার সদর উপজেলার খলিলপুর গ্রামের  ইমরান মিয়া বলেন, বিনা চিকিৎসায় আমার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে আমি এর সঠিক বিচার চাই।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  সরজমিনে অনুসন্ধানে জানা যায়,  ডাক্তাররা নিয়মিত ডিউটি করেন না এছাড়া উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহবুবুল আলমের বিভিন্ন দুর্নীতির কারণে স্টাফদের মধ্যে অসন্তোষ রয়েছে বলে জানান  নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক কর্মচারী।
এসব অভিযোগের ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহবুবুল আলম ভূইয়া বলেন, কোন দুর্ঘটনা ঘটলে অনেকে অনেক কথাই বলে। তদন্ত কমিটি করা হয়েছে, তদন্তের আগে কিছু বলা যাবে না।
অপরদিকে ডাক্তার ও নার্সদের অবহেলার শিকার হয়ে মৃত্যুবরণকারী সুমি আক্তারের লাশ শুক্রবার সাড়ে ১১টায় নিজ পিত্রালয় রহিমপুর ইউনিয়নের ধর্মপুর এলাকায় জানাজা শেষে লাশ দাফন করা হয়।
এ ঘটনায় জানাজায় উপস্থিত এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।
এ ব্যাপারে সিভিল সার্জন ডা. চৌধুরী জালাল উদ্দীন মুর্শেদ  জানান, তিন সদস্য বিশিষ্ট  তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি সাত( ৭)কার্যদিবসের  মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে হবে। তদন্তে সত্যতা পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ