দোয়ারাবাজারে পানি বন্দী মানুষের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ

প্রকাশিত:বুধবার, ৩০ জুন ২০২১ ০৯:০৬

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি:-  সংক্রামক ব্যাধী করোনা (কোভিট-১৯) এর কারনে ও দোয়ারাবাজার উপজেলায় পানি বন্দী গরীব-অসহায় ও দুস্থদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবাংশু কুমার সিংহ।

বুধবার(৩০ জুন) বিকালে উপজেলার ৮নং বোগলাবাজার ইউনিয়নের আলমখালী এলাকায় চিলাই নদীর ভাংগন ও পানিবন্ধি পরিবারের বাড়ী-ঘর পরিদর্শন করেন। পরে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে চিলাই নদী তীরবর্তী আলমখালী এলাকার ৯০টি পরিবারের মধ্যে মানবিক সহায়তা হিসেবে নগদ ৫শ’ টাকা করে অর্থ বিতরণ করা হয়।

এসময় বোগলাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম জুয়েল বলেন, চলমান বন্যা পরিস্থিতি বোগলাবাজার ইউনিয়নের কৃষকের পুকুর, আউশ ধান, বোনা আমন, বীজতলা এবং সবজি ক্ষেতসহ প্রায় ১ হাজার হেক্টর জমির ফসল পানির নিচে তলিয়ে গেছে।আলমখালী এলাকায় চিলাইনদীর ভাংগন খুব দ্রুত মেরামত করতে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবাংশু কুমার সিংহ বলেন, বিশ্ব পরিস্থিতি ও বাংলাদেশের সাময়িক পরিস্থিতিতে করোনা ভাইরাস ঝুঁকি এড়াতে সচেতনতার কোন বিকল্প নেই। পানি বন্ধি মানুষের সহায়তায় সরকারের কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণে খাদ্য সামগ্রী মজুদ রয়েছে। খাদ্য সামগ্রী নিয়ে কেউ হতাশ হবেন না। পর্যায়ক্রমে সবার ঘরে ঘরে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হবে। তাই সরকারের দেয়া নির্দেশনা মেনে সবাইকে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করার জন্য তিনি অনুরোধ জানিয়েছেন।

নগদ অর্থ বিতরণ কালে উপস্থিত ছিলেন বোগলাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম জুয়েল,উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আম্বিয়া আহমেদ, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও ট্যাগ অফিসার মো. রেজাউল ইসুয়াম, ইউপি সদস্য তোতা মিয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান, সমাজসেবক সিরাজুল ইসলামসহ, বিভিন্ন সামাজিক এবং রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। উল্লেখ্য, গত শনিবার থেকে ভারী বর্ষণে চিলাই,খাসিয়ামারা, মৌলাসহ পাহাড়ী নদী দিয়ে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে দোয়ারাবাজারের নিম্নাঞ্চল তলিয়ে যায়। পানি বন্দী হয়ে পড়ে উপজেলার বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ