চা শ্রমিকদের মজুরী নির্ধারণের দাবীতে সিলেট ভ্যালীর আলোচনা সভা

প্রকাশিত:বুধবার, ১৬ জুন ২০২১ ০৬:০৬

সুরমাভিউ:-  চা শ্রমিকদের মজুরী নির্ধারণ ও গেজেট সংশোধের দাবীতে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন সিলেট ভ্যালীর কার্যকরি পরিষদের এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (১৬ জুন) লাক্কাতুরাস্থ কার্যালয়ে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের সভাপতি রাজু গোয়ালার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক দেবু বাউড়ির পরিচালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সহ সভাপতি কল্পনা রানী নায়েক, মালনী ছড়া চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি জিতেন সবর, স্বপন গুঞ্জ, মিন্টু দাস, চৈলন মুদী, সুয়েল নায়েক, নিরেন গোয়ালা, বিপন গোয়ালা, লুঠন গোয়ালা, দিপিকা বাউড়ি, নুরু মিয়া, জয়ন্তী গোয়ালা, সেলিনা বেগম, শক্তরী প্রধান, জৈয়ন্তী কালুয়ার, সুনীল মুদি।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, প্রায় আড়াই বছর পূর্বে চা শ্রমিকদের মজুরী ১২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। এরপর থেকে চা শ্রমিকরা এই ১২০ টাকা মজুরী ধরে কাজ করে যাচ্ছেন, যা খুবই সামান্যতম মজুরী এবং তাদের জীবনমান উন্নয়নে এই মজুরী কোন কাজেই আসে না। চা শ্রমিকরা দীর্ঘ বছর থেকে তাদের মজুরী ৩’শ টাকা বৃদ্ধির জন্য নানা আন্দোলন, কর্মবিরতী পালন করলেও চা শ্রমিকদের কোন মজুরী বৃদ্ধি করা হয়নি বরং শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় নিম্নতম মজুরী বোর্ড ১৩ জুন প্রকাশিত গেজেটে আবারো চা শ্রমিকদের মজুরী ১২০ টাকা নির্ধারণ করে, যার মাধ্যমে এই গেজেট চা শ্রমিকদের হৃদয়ে মরার উপর খড়ার হিসেবে বিবেচিত। শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় নিম্নতম মজুরী বোর্ড চা শ্রমিক নেতৃবৃন্দের কোন মতামত না নিয়ে এই মজুরী নির্ধারণ করেন। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে চা শ্রমিকদের মজুরী ১২০ টাকা থেকে ৩’শ টাকায় বৃদ্ধি সহ বিভিন্ন দাবি দাওয়া উত্থাপন করেন।

দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- গ্রাজুইটি, বোনাস ৬০ দিনের মজুরী সমমান, চা শ্রমিকদের সন্তানদের শিক্ষিত করার জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন, শ্রম আইন মোতাবেক ৬ মাসের মাতৃকালীন ছুটি ও ভাতা, ২০ মে চা শ্রমিক দিবসের ছুটি এবং মজুরী প্রদান এবং বাসস্থানের উপযোগী করে ঘর নির্মাণের জন্য দাবী জানান। পাশাপাশি চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নে চলতি গেজেটকে সংশোধন করে আবারো গেজেট প্রণয়নের দাবী জানান। বিজ্ঞপ্তি

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ