চাচার ছোড়া পাথরের আঘাতে ভাতিজা আহত : থানায় অভিযোগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার, ২৫ মে ২০২১ ১২:০৫

কানাইঘাট প্রতিনিধি:- সিলেটের কানাইঘাটে আপন চাচার ছোড়া পাথরের আঘাতে রক্তাক্ত আহত হয়েছে আপন ভাতিজা কিশোর কাওছার আহমদ। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউপির খালকর নয়াগ্রামে।

এ ঘটনায় ঐ কিশোরের মা রিনা বেগম বাদী হয়ে ৫ দেবরকে আসামী করে কানাইঘাট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। গতকাল সোমবার রিনা বেগম জানান তার স্বামী বুরহান উদ্দিন র্দীঘদিন থেকে প্রবাসে রয়েছেন। তিনি ৪ ছেলে মেয়ে নিয়ে বাড়িতে থাকেন।

এই সুযোগে তার দেবর আলা উদ্দিন, মঈন উদ্দিন, শাহাব উদ্দিন, হেলাল উদ্দিন ও কামাল উদ্দিন মিলে বসত বাড়ির জায়গা নিয়ে তাকে নানা ধরনের অত্যাচার ও মানসিক নির্যাতন করে যাচ্ছেন। বর্তমানে তাদেরকে বাড়ি থেকে বের হওয়ার সকল রাস্তা দেবররা বন্ধ করে দিয়েছেন। এমনকি উঠানে গাছের ডালপালা ফেলে দিয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছেন। ঐ প্রতিবদ্ধকতা এড়িয়ে গত শুক্রবার তার ছেলে কাওছার আহমদ গৃহপালিত গরুর জন্য খড়ের ঘর হতে খড় আনতে গিয়ে মুলত এমন ঘটনার স্বীকার হয়েছে ঐ কিশোর।

সরেজমিনে দেখা যায় অসহায় রিনা বেগমের উঠনের পাশে রয়েছে তার গৃহপালিত গরুর জন্য খড়ের ঘর। ঐ ঘর হতে যাতে রিনা বেগমের ছেলেরা খড় নিয়ে না আসতে পারে সেজন্য আলা উদ্দিনরা উঠনে গাছে ডালপালা ফেলে রেখেছেন। রিনা বেগমের ছেলে কাওছার ঐ ডালপালা সরিয়ে খড় আনতে চাইলে আপন চাচারা তার উপর চড়াও হয়। এক পর্যায় চাচা কামালের ছোড়া পাথরের আঘাতে কিশোর কাওছার রক্তাক্ত আহত হয়। এতে রিনা বেগম ছেলেকে উদ্ধার করতে গেলে তিনি তাদের নির্যাতনের স্বীকার হন। এমনকি তাকে শীলতাহানীও করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে আলা উদ্দিনের সাথে কথা হলে তিনি রেগে যান এবং অসহায় রিনা বেগমের দরজার সামনে এসে গালাগালি শুরু করেন। এমনকি নানা ধরনের হুমকি সহ ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। যাই হোক বিষয়টি আইনশৃঙ্খলাবাহিনী দ্রুত নিষ্পত্তি না করলে সেখানে অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটতে পারে বলে উপস্থিত অনেকেই জানিয়েছেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ