কুলাউড়া কর্মধায় কালেক্টর তাজুলের বাড়ি থেকে সরকারি সার ও ধানের বীজ উদ্ধার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১ ০২:০৫

 

বিশেষ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজার জেলা কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের কালেক্টর তাজুল ইসলামের বাড়ি থেকে সরকারি ৮ বস্তা সার ও ২ বস্তা আউশ ধানের বীজ উদ্ধার করেছে কুলাউড়া কৃষি কর্মকর্তা । সোমবার (১০ মে) সন্ধায় কর্মধা ইউনিয়নের দক্ষিন বাবনিয়া (খাড়ার পার) গ্রামের বাসিন্দা কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের কালেক্টর ও কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ রহমান আতিকের আত্মীয় মোঃ তাজুল ইসলামের বাড়ি থেকে সরকারি ৮ বস্তা সার ও ২ বস্তা আউশ ধানের বীজ উদ্ধার করা হয় । এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুলাউড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেন , কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সাঈদুল ইসলাম , উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রঞ্জিত সহ স্থানীয় এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ।

সূত্রে জানা যায় সরকারি সার ও ধানের বীজ এপ্রিল মাসের ১৯ তারিখে কর্মধা ইউনিয়নে বরাদ্দ করা হয় । দীর্ঘ ২০ দিনেও উপকার ভোগীদের মাঝে বন্টন না করে কর্মধা ইউনিয়নের কালেক্টর তাজুল ইসলাম তার নিজের বাড়িতে রেখে দেন ।

কুলাউড়া কৃষি কর্মকর্তা জানান অক্ষত অবস্থায় ৮ বস্তা সার ও ২ বস্তা ধানের বীজ উদ্ধার করে কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সাইদুল ইসলামের জিম্মায় দেয়া হয় । কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের কালেক্টর তাজুল ইসলামের চাচা শহিদ মিয়ার ঘর থেকে এগুলা উদ্ধার করা হয় ।

কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের কালেক্টরপরিচয়দানকারী মোঃ তাজুল ইসলামের কাছে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তাজুল ইসলাম বলেন , আমি কিছুই জানিনা চেয়ারম্যান সাহেব সব জানেন , কর্মধা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বলেছেন এগুলো বিক্রি করে টাকা চেয়ারম্যানকে দিতে এর বাহিরে আমি আর কিছুই জানিনা ।

এলাকাবাসীর সূত্রে জানা যায় কালেক্টর তাজুল ইসলাম আরো অনেক অনিয়ম ও দুর্নীতি করেছেন , তাজুল ইসলামের বাবা সামান্য একজন কলা ব্যবসায়ী ছিলেন , রাংগীছড়া বাজারে প্রতি বাজার বারে কলা বিক্রি করতেন । যে দিন থেকে তাজুল ইসলাম কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদে কালেক্টর পদে চাকরি করেন বিভিন্ন অনিয়ম আর দুর্নিতি করে বাড়িতে পাকা দলান বিল্ডিং তুলেছেন এসব টাকার উতসহ বিভিন্ন দুর্নীতি আর অনিয়ম করে ।

কর্মধা ইউনিয়ন পরিষসের চেয়ারম্যান এম এ রহমান আতিকের বিরুদ্ধে আরো বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রণালয়ের জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর থেকে দরিদ্র অঞ্চলের মানুষের মাঝে বিতরণ করার জন্য একটি গভীর নলকূপ ও একটি রিং টিউবওয়েল কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদকে বরাদ্ধ দেয়া হয় । সেই নলকূপটি তার বড় ভাইয়ের নামে বরাদ্ধ দেখিয়ে নিজ বাড়িতে স্থাপন করেন চেয়ারম্যান ।

কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এটিএম ফরহাদ চৌধুরী জানান । সরকারি ৮ বস্তা সার উদ্ধার বিষয়টি উনার নজরে এসেছে উপকারভোগীদের হাতে পৌছাতে এক ইউপি সদস্যের জিম্মায় রাখা হয়েছে । বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখবো ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ