লকডাউনে সিলেটে কঠোর অবস্থানে পুলিশ প্রশাসন

প্রকাশিত:বুধবার, ২১ এপ্রি ২০২১ ০৫:০৪

সিলেট অফিস।। সারাদেশের ন্যায় ‘সর্বাত্মক লকডাউনে’ ৮ম দিনে সিলেটে জনসমাগম ও যানবাহন অন্য দিনের তুলনায় কিছুটা বেশী রয়েছে। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে পুলিশের চেকপোস্ট বসানোর পর পরই তা কমে যায়।

বুধবার (২১ এপ্রিল) সকালে সিলেট নগরীতে যানবাহনের সংখ্যা কিছুটা বেশী দেখা গেলে বেলা বাড়ার সাথে সাথে পুলিশের চেকপোস্ট বসানোর পর পরই তা কমে যায়। সেই সাথে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে মোড়ে বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে চলছে পুলিশের অভিযান।

তবে জরুরী কাজের জন্য যারা বের হচ্ছেন তাদের সার্বিক বিষয় তথ্য নিয়ে পুলিশ ছেড়ে দিচ্ছে। লকডাউনের সময় বাইরে বের হলে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়ছেন। এছাড়া জরুরী কাজ ছাড়া কেউ রিকশা নিয়ে বের হলে পুলিশ রিকশা থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিচ্ছে।

 

বুধবার সকাল থেকে সিলেট নগরীর রাস্তায় অন্য দিনের তুলনায় সিএনজি অটোরিকশা, মোটরসাইকেল, প্রাইভেট গাড়ি ও রিকশা দেখা গেছে। সেই সাথে লকডাউন বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে পুলিশ। পুলিশের চেকপোস্টে রাস্তায় বের হওয়ার কোনো সদুত্তোর না পেলেই যাত্রী নামিয়ে দিয়ে মামলা দিচ্ছে সংশ্লিষ্ট যানবাহনের বিরুদ্ধে। সেই সাথে জরিমানাও করা হচ্ছে।

এদিকে, সিলেট নগরীর কালিঘাট, বন্দরবাজার, চৌহাট্টা, মদিনা মার্কেট ও আম্বরখানা এলাকাসহ বেশ কিছু এলাকায় বুধবার সকাল থেকে জনসমাগম কিছুটা বেশী রয়েছে। অনেকেই যানবাহন ব্যবহার না করেই পায়ে হেঁটে বাজার করাসহ জরুরী কাজ করতে দেখা গেছে। এছাড়া সিলেট নগরীর অলি গলিতে ভাসমান পণ্য বিক্রেতাদের তৎপরতা ছিলো আগের চেয়ে একটু বেশী। সেই সাথে সিলেটের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে হকারদের সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। লকডাউনের ৮ম দিনে সিলেট মহানগরের সবকটি কাঁচাবাজার, মুদির দোকান ও ওষুধের দোকান খোলা থাকলেও বিপণী বিতান, মার্কেটসহ সকল ফ্যাশন হাউজ বন্ধ রয়েছে।

এদিকে লকডাউনের বিষয়ে এসএমপি’র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আশরাফ উল্লাহ তাহের বলেন, নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের চেকপোস্ট পরিচালিত হচ্ছে। যারা বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি করবেন, মুভমেন্ট পাস না নিয়ে বাইরে বের হবেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মানবেন না তাদেরকে জরিমানা করা হচ্ছে।